Pus-Cells-in-Urine

সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবন-যাপনের জন্য প্রতিটা মানুষের নিজের শরীর সম্বন্ধে একটা সাধারন জ্ঞান থাকা আবশ্যক। কোন অস্বাভাবিকতা লক্ষ্য করলে অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে আলোচনা অত্যন্ত জরুরী। আমাদের আজকের বিষয় “প্রস্রাবে পুঁজ কোষ” বা Pus Cells in Urine.

এখন প্রশ্ন হলো পুঁজ কোষ বা Pus Cells কি?

পুস কোষ হল মৃত, শ্বেত রক্তকণিকার একটি সংগ্রহ। এই কোষগুলি সংক্রমণের জায়গায় একটি সাদা-হলুদ বা হলুদ রঙের প্রোটিন সমৃদ্ধ তরল তৈরি করে। এই তরলটি লিকার পুরিস নামে পরিচিত। এই পুঁজ কোষ কখনও কখনও আপনার প্রস্রাবে উপস্থিত হতে পারে। এই রকম অবস্থা, যেখানে প্রস্রাবে শ্বেত রক্তকণিকার উপস্থিতি সনাক্ত করা হয় তাকে পিউরিয়া বলে। পিউরিয়া জীবাণুমুক্ত বা অ-জীবাণুমুক্ত হতে পারে। জীবাণুমুক্ত পিউরিয়া বলতে কোনো ব্যাকটেরিয়া সনাক্ত না করেই প্রস্রাবে পুঁজ কোষের উপস্থিতি বোঝায় যেখানে জীবাণুমুক্ত পিউরিয়া ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতির কারণে হয়। সাধারণভাবে রক্তের শ্বেত কণিকা বা লিউকোসাইটকে পুঁজ কোষ বলা হয়। যাদের প্রধান কাজই হলো শরীরে অনুপ্রবেশকারী জীবাণুর সাথে লড়াই করে জীবনকে সুস্থ রাথা। কিন্তু যদি কখনো রক্তে Pus Cell-এর মাত্রা বেড়ে যায় তাহলে বুঝতে হবে শরীরে কোন না কোন সংক্রমণ ঘটেছে। মূত্রের ক্ষেত্রে যখন এই পুঁজ কোষের মাত্রা বাড়ে তখন তাকে বলে পিউরিয়া (Pyuria)। এই পিউরিয়াকে ব্যাক্টেরিউরিয়াও বলা হয়।

কিভাবে বুঝবেন আপনি মূত্রনালী কিংবা কিডনির সমস্যায় আচ্ছন্ন?

তলপেট ব্যাথা, সর্দ্দি-জ্বর, বারে বারে প্রস্রাব, প্রস্রাব করার সময় জ্বালা, চুলকানি ও অস্বস্তি, প্রস্রাবে দুর্গন্ধ ইত্যাদি লক্ষণগুলো একেবারে প্রাথমিক হলেও কোনভাবেই তা অবহেলা করা উচিত নয়। অবিলম্বে ডাক্তারের পরামর্শ নিন এবং সঠিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসার মাধ্যমে নিজেকে সুস্থ করে তুলুন। 

প্রস্রাবে পুস কোষ থাকে কেন?

প্রস্রাবে পুঁজ কোষের উপস্থিতি বিভিন্ন কারণে হতে পারে। মূলত ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে প্রস্রাবে পুঁজ কোষের উপস্থিতি। প্রস্রাবে পুঁজ কোষ হওয়ার প্রধান কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন (ইউটিআই), অর্থাৎ আপনার মূত্রথলি, মূত্রনালী, মূত্রনালী বা কিডনির মতো আপনার মূত্রতন্ত্রের যে কোন অংশে সংক্রমণ, ভাইরাল সংক্রমণ বা গনোরিয়ার মতো যৌন সংক্রমণ যাকে ডাক্তারী পরিভাষায় বলে Sexually transmitted infection (STI)। এছাড়াও নিম্ন লিখিত কারণে পুঁজ কোষের উপস্থিতি সম্ভব –

  • যক্ষ্মা
  • সেপসিস সহ ব্যাকটেরিয়া
  • কিডনীর রোগ
  • মূত্রনালীর পাথর
  • নিউমোনিয়া
  • প্রোস্টাটাইটিস
  • পরজীবী
  • অটোইম্মিউন রোগ
  • পলিসিস্টিক কিডনি রোগ
  • মূত্রনালীতে টিউমার
  • অ্যাসপিরিন এবং আইবুপ্রোফেনের মতো ননস্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ড্রাগ সেবন
  • পেনিসিলিন অ্যান্টিবায়োটিক
  • মূত্রবর্ধক

Culture, Urine

Offer Price:

₹600₹1200
Book Health Test
  • Total no.of Tests - 1
  • Quick Turn Around Time
  • Reporting as per NABL ISO guidelines

প্রস্রাব বিশ্লেষণে পুঁজ কোষ-এর উপস্থিতি হল পিউরিয়া। কখনো কখনো পুঁজ কোষের উপস্থিতি লক্ষণবিহীন হতে পারে এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মূত্রনালীর সংক্রমণ বা Urinary Tract Infection (UTI) তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। হাই পাওয়ার ফিল্ড মাইক্রোস্কোপ বা HPF দ্বারা সেন্ট্রিফিউজড প্রস্রাবের নমুনার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। পুঁজ কোষের সংখ্যা 4টির বেশি হলে পিউরিয়াকে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হয়। 

প্রোটন পাম্প ইনহিবিটার যেমন ওমেপ্রাজলপ্রস্রাবে পুঁজ কোষের সনাক্তকরণ ও বিশ্লেষণ

চিকিৎসকের পরামর্শে ল্যাবরেটরিতে প্রস্রাব বিশ্লেষণ করার পদ্ধতিকে বলা হয় তৃতীয় প্রধান স্ক্রীনিং পরীক্ষা (Third Major Screening Test)। মানব শরীরের স্বাভাবিক এবং অস্বাভাবিক প্রক্রিয়ার ফলে বিভিন্ন উপজাতগুলি প্রস্রাবের মাধ্যমে নির্গত হয়। স্ক্রীনিং পরীক্ষার মাধ্যমে উপজাতগুলিকে সঠিকভাবে সনাক্ত ও বিশ্লেষণ করা হয়। মূত্রনালীর সংক্রমণ নির্ণয়ের জন্য চিকিৎসকরা বেশিরভাগই এটি সুপারিশ করেন। 

বিশদ প্রস্রাব বিশ্লেষণ বা Urine Detailed Report (D/R) হল একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রাথমিক তদন্ত যা বিভিন্ন রোগের মূল্যায়ন এবং স্ক্রীনিং। নিম্ন মূত্রনালীর উপসর্গ বা Lower Urinary Tract Symptoms (LUTS) বা অব্যক্ত জ্বরজনিত অসুস্থতা রয়েছে এমন রোগীদের ক্ষেত্রেও ইউরিন D/R একটি প্রাথমিক এবং গুরুত্বপূর্ণ মূল্যায়ন পদক্ষেপ। পিউরিয়া হিসাবে সংজ্ঞায়িত প্রস্রাবে পুঁজ কোষের উপস্থিতি ব্যাকটেরিউরিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ যা উপসর্গবিহীন হতে পারে বা অন্তর্নিহিত মূত্রনালীর সংক্রমণ বা Urinary Tract Infection (UTI) এর দিকে নির্দেশ করতে পারে। একটি কেন্দ্রীভূত প্রস্রাবের নমুনায় 4টির বেশি পুস কোষ/ HPF (হাই পাওয়ার ফিল্ড মাইক্রোস্কোপ) থাকলে পিউরিয়া তাৎপর্যপূর্ণ। নিম্ন মূত্রনালীর উপসর্গ এবং ব্যাকটেরিয়া সহ পজিটিভ নাইট্রাইটের উপস্থিতিতে পিউরিয়ার উপস্থিতি মূত্রনালীর সংক্রমণের অত্যন্ত ইঙ্গিত দেয়। জীবাণুমুক্ত পিউরিয়া হল একটি পরিচিত সত্তা যা সংক্রমণের উপসগ্র ছাড়াই প্রস্রাবে পুঁজ কোষের উপস্থিতি নির্দেশ করে।

অনেকগুলি সংক্রমণ যা নিয়মিত প্রস্রাবের পরীক্ষা দ্বারা বাছাই করা হয় না সেগুলি জীবাণুমুক্ত পিউরিয়ার সাথে যুক্ত পাওয়া যায় যেমন জিনিটোরিনারি টিউবারকিউলোসিস, ক্ল্যামিডিয়া, ইউরিয়া প্লাজমা ইউরিয়ালিটিকাম ইত্যাদি। জীবাণুমুক্ত পিউরিয়ার সাথে সম্পর্কিত পরিচিত পদ্ধতিগত রোগগুলি হল SLE4, Kakisa’4, সিকেল সেল ডিজিজ এবং রাইটারস সিনড্রোম।

কিডনির কিছু কাঠামোগত অস্বাভাবিকতা যা জীবাণুমুক্ত পিউরিয়ার সাথে সম্পর্কিত বলে পরিচিত তা হল পাথরের রোগ, অসংযম, ইনডওয়েলিং ক্যাথেটারাইজেশন, রেনাল প্যাপিলারি নেক্রোসিস, পলি সিস্টিক কিডনি, রেনাল নিওপ্লাজম ইত্যাদি। 

সৌদি আরব থেকে সম্প্রতি প্রকাশিত একটি নিবন্ধে ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে UTI-এর প্রাদুর্ভাব 25.3% বলে জানা গেছে। ইতালির আরেকটি গবেষণায় ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে উপসর্গহীন ব্যাকটেরিয়া সম্পর্কে উল্লেখ করা হয়েছে।

Why Choose Redcliffelabs?

Redcliffe Labs is India’s fastest growing diagnostics service provider having its home sample collection service in more than 60 cities with 20+ labs across India.

NABL accredited labs

Most affordable Prices

Free Home Sample Pickup

Painless Sample Collection

Get Reports In 24 hours

Free Consultation

বর্তমানে ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে জীবাণুমুক্ত পিউরিয়া রোগীদের প্রাদুর্ভাব, পিউরিয়ার সাথে ডায়াবেটিসের সম্পর্ক, পিউরিয়ার অ্যান্টিবায়োটিক দরকার কি না, তা নিয়ে ডাক্তারী শাস্ত্রে ভালভাবে বর্ণনা করা হয়নি। পিউরিয়া বা জীবাণুমুক্ত পিউরিয়া রোগীদের কীভাবে মূল্যায়ন করা যায় তার কোনও নির্দিষ্ট নির্দেশিকাও বর্তমানে নেই।

আমাদের লক্ষ্য সর্বদাই ডায়াবেটিস রোগীদের সমস্যার ব্যাপ্তি অনুমান করা এবং মূত্রনালীর সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকা রোগীদের সনাক্তকরণে সহায়তা করা। 

Vital Screening Package

Offer Price:

₹399₹1810
Book Your Test
  • Total no.of Tests - 81
  • Quick Turn Around Time
  • Reporting as per NABL ISO guidelines

বিশদ প্রস্রাব বিশ্লেষণ বা Urine Detailed Report (D/R) একটি  উল্লেখযোগ্য এবং প্রাথমিক পরীক্ষাগার তদন্ত পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে নিম্ন মূত্রনালীর উপসর্গ বা Lower Urinary Tract Symptoms (LUTS)-এর অসুস্থতা প্রাথমিকভাবে ধরা পড়ে এবং চিকিৎসার প্রাথমিক পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়।

বর্তমান গবেষণায় আমরা ডায়াবেটিক পিউরিক রোগীদের অর্ধেকেরও বেশি ইউটিআই-এর ফ্রিকোয়েন্সি পর্যবেক্ষণ করেছি। ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে UTI-এর সামগ্রিকভাবে রিপোর্ট করা ফ্রিকোয়েন্সি হল 25.3% যার মধ্যে 41.1% মহিলা। 

উপলভ্য প্রমাণগুলি ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে উপসর্গহীন ব্যাকটিরিয়ার অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল চিকিৎসাকে সমর্থন করে না৷ ডায়াবেটিস রোগীর পিউরিয়া লক্ষণযুক্ত হলে ইউটিআই হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়৷

বর্ধিত প্রস্টেটযুক্ত রোগীদের মধ্যে UTI সম্পর্কিত সমস্যার উপসর্গ লক্ষ্য করা যায়। আমাদের পর্যবেক্ষণে ইউটিআই রোগীদের প্রায় 70% প্রোটিনটুরিয়াও লক্ষ্য করেছি। মহিলাদের ক্ষেত্রে ইউটিআই-এর ঝুঁকি প্রবল। বর্তমান এক গবেষণায় পুরুষ ও মহিলার আনুপাতিক হার 1:2.27 

পরীক্ষায় দেখা গেছে যে ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় জীবাণুমুক্ত পিউরিয়ার প্রবণতা বেশি। ইতালির একটি গবেষণায় ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে উপসর্গহীন ব্যাকটেরিয়া সম্পর্কে উল্লেখ করা হয়েছে। পাকিস্তানে স্থানীয়ভাবে করা জিনিটোরিনারি যক্ষ্মা সম্পর্কিত সাম্প্রতিক গবেষণায় জীবাণুমুক্ত পিউরিয়ার প্রাদুর্ভাব 19.16% নির্ধারণ করা হয়েছে।

অতএব, এটা যুক্তিসঙ্গত যে ডায়াবেটিক পিউরিক আক্রান্ত মহিলা রোগীদের চিকিৎসার প্রয়োজন, বিশেষ করে যখন তাদের লক্ষণ অস্বাভাবিক।

এখন পর্যন্ত প্রস্রাবে শ্বেত রক্তকণিকার সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল মূত্রতন্ত্রের সংক্রমণ বা কিডনির সমস্যায়ও হতে পারে। যদিও 98-99% সময় প্রস্রাবে পুঁজ কোষের সংক্রমণের জন্য দায়ী, যদিও এটি একমাত্র কারণ নয়। শরীর সাধারণত একটি প্রদাহজনক প্রতিক্রিয়া দ্বারা টিস্যুর মাধ্যমে সাড়া দেয়। এই প্রদাহজনক প্রতিক্রিয়াটি রক্ত ​​​​প্রবাহ বৃদ্ধি, টিস্যুগুলির সামান্য ফোলাভাব এবং জ্বালা মোকাবিলায় সাহায্য করার জন্য শ্বেত রক্তকণিকার প্রয়োজন হয়। সুতরাং, মূত্রতন্ত্রের প্রদাহের যে কোনো কারণ প্রস্রাবে সাদা রক্ত ​​কণিকার সংখ্যা বাড়িয়ে দিতে পারে।

ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ হল প্রদাহের এক নম্বর কারণ যা স্বাভাবিক প্রস্রাব থেকে সহজেই সংক্রমিত হতে পারে। কিছু অন্যান্য ব্যাকটেরিয়া অস্বাভাবিকভাবেও মূত্রনালীতে সংক্রমণ ঘটাতে পারে। 

কিডনির কিছু প্রদাহজনক ক্ষত যেমন: লুপাস নেফ্রাইটিস, পলিআর্টেরাইটিস নোডোসা, অ্যানালজেসিক নেফ্রোপ্যাথি, গ্লোমেরুলোনফ্রাইটিস, সীসা নেফ্রোপ্যাথি এবং সেকেন্ডারি সিফিলিসের কারণেও পিউরিয়া হতে পারে।

ট্রাইকোমোনা ভ্যাজাইনালিস, স্কিস্টোসোমা হেমাটোবিয়াম, গিয়ার্ডিয়া ল্যাম্বলিয়া এবং এন্টামোয়েবা হিস্টোলাইটিকার মতো পরজীবীগুলিও প্রস্রাবে দেখা যেতে পারে এবং পিউরিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

মূত্রাশয় বা কিডনির টিউমার বা ক্যান্সারে প্রায়ই টিউমারের চারপাশে প্রদাহের একটি এলাকা থাকে এবং এইভাবে প্রস্রাবে শ্বেত কণিকার সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে পারে। কিডনি, মূত্রনালী বা মূত্রাশয়ের পাথর সাধারণত প্রস্রাবে রক্ত নির্গত হওয়ার একটি কারণ। মাঝে মাঝে প্রস্রাবে শ্বেত রক্তকণিকা বেশি থাকার কারণে মূত্রতন্ত্রে যথেষ্ট জ্বালা অনুভূত হয়। সমস্ত টিস্যু একটি প্রদাহজনক প্রতিক্রিয়ার মাধ্যমে নিরাময় হয়। এইভাবে ট্রমাযুক্ত রোগীদের বা যাদের মূত্রতন্ত্রে অস্ত্রোপোচার করা হয়েছে তাদের সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত পিউরিয়া থাকে।

ইন্টারস্টিশিয়াল সিস্টাইটিস হল মূত্রাশয়ের একটি প্রদাহজনক সিন্ড্রোম, যেটিতে কেবল পিউরিয়াই থাকতে পারে না, বরং সাধারণ মূত্রাশয়ের সংক্রমণের মোটামুটি সাধারণ লক্ষণও থাকতে পারে।

অন্যান্য সমস্যাগুলি যা বিবেচনা করা দরকার তা হল রেইটার্স সিন্ড্রোম, যোনি থেকে দূষণ, রেট্রোপেরিটোনিয়াল ফাইব্রোসিস এবং মূত্রনালী বা মূত্রাশয়ে সাবান বা ওষুধের মতো রাসায়নিক।

যদিও পিউরিয়ার সবচেয়ে সাধারণ কারণ একটি সংক্রমণ, যে সমস্ত রোগীরা অ্যান্টিবায়োটিকের কোর্সে যথাযথভাবে সাড়া দেয় না বা যাদের ক্রমাগত পিউরিয়া থাকে তাদের কারণগুলির জন্য বিশেষ মূল্যায়ন করা প্রয়োজন। মাঝে মাঝে, অন্যান্য কারণগুলির জন্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে অনুসন্ধান করা সত্ত্বেও, কোন কারণ খুঁজে পাওয়া যায় না। আমরা এটিকে ইডিওপ্যাথিক পিউরিয়া বলি। 

প্রস্রাবে পুঁজ কোষের স্বাভাবিক পরিসীমা 0-5। যদি পুঁজ কোষের উপস্থিতি 8-10টি হয়, তবে সেটা সাধারণত মূত্রনালীর ব্যাকটেরিয়া-সংক্রমণ ধরে ডাক্তারেরা অ্যান্টিবায়োটিক নির্ধারণ করেন। প্রয়োজনে ডাক্তারেরা প্রস্রাবের মিশ্রণ নমুনা আরও একবার ল্যাবে পাঠানোর সুপারিশ করে থাকেন।

প্রাপ্তবয়স্কদের মূত্রনালীর সংক্রমণ নির্ণয়ে মূত্রনালীর পুঁজ কোষের উপস্থিতি ≥ 5 প্রতি HPF (হাই পাওয়ার ফিল্ড মাইক্রোস্কোপ)।

শিশুঃ-

মূত্রনালীর সংক্রমণ বা Urinary Tract Infection (UTI) হল জীবাণু থেকে একটি সংক্রমণ, যা চিকিৎসকরা প্রস্রাবের পুঁজ কোষ থেকে নির্ণয় করেন। শিশুদের ক্ষেত্রে, ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ধরা পড়লে চিকিৎসকরা তাদের বেশি করে Oral Fluid বা  তরল খাবারের পরামর্শ দেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, মূত্রনালীর সংক্রমণ হয় ব্যাকটেরিয়ার জন্য, তবে ছত্রাকও মূত্রনালীর সংক্রমণ বা UTI ঘটাতে পারে। চিকিৎসকরা সাধারণত অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা করেন এবং প্রচুর পরিমাণে জল পান করার পরামর্শ দেন যা দিনে অন্তত 3.5 লিটার।

গর্ভবতী মহিলাঃ-

পারিপার্শ্বিকতা ও শারীরিক পরিবর্তনের ফলে মূত্রনালীতে ব্যাকটেরিয়া তৈরি হয় যা কখনো কখনো উপসর্গবিহীন। সাধারণত গর্ভাবস্থায় গর্ভে ভ্রূণের কারণে রক্তরস বৃদ্ধি পায়, ফলে প্রস্রাবের ঘনত্ব কমে আসে। গর্ভাবস্থায় মহিলাদের মধ্যে গ্লুকোসুরিয়ার বিকাশ ঘটায় প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়, যা প্রস্রাবে ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধির একটি উল্লেখযোগ্য কারণ। গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে উপসর্গহীন ব্যাকটেরিয়ার প্রকোপ ঘটার সম্ভবনা প্রবল। এই পরিসীমা 1.6-86% থেকে পরিবর্তিত হয়। চিকিৎসা না করা গর্ভবতী মহিলাদের অ্যাসিম্পটমেটিক ব্যাকটেরিয়াউরিয়া কিংবা তীব্র পাইলোনেফ্রাইটিস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পাইলোনেফ্রাইটিস গর্ভাবস্থায় মা এবং ক্রমবর্ধমান ভ্রূণ উভয়ের জন্যই ক্ষতির কারণ। তাই, চিকিৎসকরা গর্ভাবস্থায় নিয়মিত প্রস্রাব বিশ্লেষণ করার পরামর্শ দিয়ে মা ও শিশুর জটিলতা কাটিয়ে তোলেন।

প্রস্রাবের রুটিন পরীক্ষাঃ-

বিষয়স্বাভাবিক পরিসীমা
রঙবর্ণহীন, ফ্যাকাশে/গাঢ় হলুদাভ
আপেক্ষিক গুরুত্ব১.০০৫ থেকে ১.০২৫
পি এইচ৪.৫ থেকে ৮
লোহিত রক্তকণিকা (RBC)২-এর সমান বা কম প্রতি hpf
শর্করা১৩০মিলিগ্রাম প্রতি দিনে
ইউরোবিলিনোজেন০.১ থেকে ১.০
প্রোটিন১৫০মিলিগ্রাম প্রতি দিনে
কেটোননেই
স্কোয়ামাস ইপিথেলিয়াল কোষ১৫-২০ প্রতি hpf
পুঁজ কোষ২-৩ প্রতি hpf
স্ফটিকঅম্ল
কাস্ট০-৫ প্রতি lpf (low power field)
অস্বচ্ছতাসামান্য ঝাপসা, প্রায় স্বচ্ছ
শ্বেত রক্তকণিকা (WBC)২-৫ প্রতি hpf

মূত্রনালীর সংক্রমণ বা UTI ইউটিআই ছাড়াও কিছু সংক্রমণের কারণে প্রস্রাবে পুঁজ কোষ দেখা যায়। এর মধ্যে রয়েছে যক্ষ্মা, অটোইমিউন রোগ, কিডনি রোগ ইত্যাদি।

উপসংহার

প্রস্রাব বিশ্লেষণ হলো প্রস্রাবের নমুনায় পুঁজ কোষের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতির পর্যালোচনা। প্রাথমিক চিকিৎসার অংশ হিসাবে ডাক্তাররা প্রস্রাব বিশ্লেষণের পরামর্শ দেন। উচ্চ পরিসরে পুঁজ কোষের সনাক্তকরণ হলো ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক বা ভাইরাল সংক্রমণের একটি ইঙ্গিত। রিপোর্টের ক্লিনিকাল তাৎপর্য অনুসারে ডাক্তারেরা তার চিকিৎসার কৌশল তৈরি করেন।

Prime Full body Check Up

Offer Price:

₹399₹2010
Book Test Now
  • Total no.of Tests - 76
  • Quick Turn Around Time
  • Reporting as per NABL ISO guidelines
Share

Ms. Srujana is Managing Editor of Cogito137, one of India’s leading student-run science communication magazines. I have been working in scientific and medical writing and editing since 2018. I am also associated with the quality assurance team of scientific journal editing. I am majoring in Chemistry with a minor in Biology at IISER Kolkata.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Free Call back from our health advisor instantly